ইসলাম ও তার বিজ্ঞ অনুসারীগণ

শান্তির ধর্ম ইসলামের অনুসারীগণ অতিশয় সক্রিয় মৌল। আফসোস — ইসলাম, অনুসারীদের কারণে তুমি আজ সোনার বদলে পটাশিয়াম হইয়া গিয়াছো; এখন বাতাস — তা উড়ো বা ঝড়ো যাই হোক না কেনো, সংস্পর্শে আসিলেই তুমি দুমদাম ফুটিতে থাকো।

তোমার ভাণ্ডারে তব বিবিধ রতন। তোমার অনুসারীগণ পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজ অবলীলায় ভুলিয়া যায়, কিন্তু ঈদের ওয়াজিব নামাজ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করিয়া থাকে, এবং যাহারা তা পালন করিতে ব্যর্থ হয় তাহাদিগকে তিরষ্কার করিয়া থাকে। শূকরের মাংস বিক্রয় ও ভক্ষণ তোমার অনুসারীগণ অতি ঘৃণার চোখে দেখে, কিন্তু ঘুষ খাইয়া বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হইয়া ট্রফি লইয়া ঘরে ফিরে। আর তোমার নবীজির কথা কি বলিবো? .. বিজ্ঞ অনুসারীগণ তোমার একমাত্র নবীর প্রেমে জীবন দিয়া দিতেছে, কিন্তু তাহার সুন্নতের দিকে ভ্রুক্ষেপ করার কথা তাহাদের ইয়াদে নাই।

ইসলাম, অতীতে যে মর্যাদা ও সম্মান নিয়া তুমি বিশ্বের একটা বড় অংশ শাসন করিয়াছো, তোমার সেই মর্যাদা আজ তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণীর একটি ভিডিওর কারণে হুমকির মুখে পড়িয়াছে। আর সেই হুমকির নিরসনকল্পে তোমার অনুসারীগণ তোমার আপন গোত্রীয় ভ্রাতাদিগকেই বাঁশ দিতেছে।

বিজ্ঞদের মুখে শুনিয়াছি মানুষের জন্য নাকি ধর্ম। অথচ তোমার জন্য আজ মানবতা থেকে ধর্ম বড় হইয়া গিয়াছে। মানুষ এখন সমানে হিটলারের বাছবিচারহীন ইহুদি নিধন সমর্থন করিতেছে ও তদীয় ছবি ইহুদি পরিবারে জন্ম ও বেড়ে ওঠা এক নাস্তিকের সৃষ্ট ও পরিচালিত ফেসবুকে শেয়ার করিতেছে।

ইসলাম, ফেসবুকের কথা আর কি বলিবো? তোমার ঈমানের চাষ এখন মসজিদের চাইতে ফেসবুকেই বেশি হইতেছে। মানুষ এখন বাস্তবে তোমার কুরআন হাত লওয়ার চাইতে ফেসবুকেই এ বিষয়ক ভালোবাসা প্রমাণ করিতেছে ও ইহার প্রমাণ স্বরূপ “আমি কুরআনে পাকের প্রতি আমাদের ভালোবাসা প্রমাণের জন্য ৯,৯৯৯,৯৯৯টি ফ্যান চাই” শীর্ষক পাতায় সমানে লাইক মারিতেছে ও মারিতে উদ্বুদ্ধ করিতেছে।

তোমার জন্য তোমার বিজ্ঞ অনুসারীগণ আজ নির্বোধ হইয়াছে। তথাকথিত ইহুদি-নাছারাদের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ করিতে গিয়া তাহারা নিজেদের জানমাল ও শিক্ষার বারোটা বাজাইয়া দিতেছে। একটি ভিডিওর দোহাইয়া দিয়া ১২ কোটির বেশি ভিডিও থাকা একটি ওয়েবসাইট বন্ধ করিতে গিয়াছে এবং তাহাতে হিমশিম খাইয়া সাথে আরও গণ্ডাখানেক ওয়েবসাইট বন্ধ করিয়া সকলের হাসি ও বিরক্তির পাত্র হইয়াছে।

বলার তো আরও অনেক কিছুই ছিলো..

তবে পরিশেষে, মুসলিম উম্মাহ, জন্মসূত্রে তুমি ধর্মটাই পাইয়াছো, কেবল বুদ্ধি আর শিক্ষাটাই আর অর্জন করিতে পারো নাই। এ অবস্থায় সকল ফালাফালি ছাপাইয়া পরাজয় তোমার সুনিশ্চিত — ইহা জানিয়া রাখো। তাই তথাকথিত ইহুদি-নাছারাদের সুবুদ্ধির প্রার্থনার আগে তোমার সুবুদ্ধির প্রার্থনাই এখন বেশি জরুরী হইয়া গিয়াছে। কারণ শুধুমাত্র বিবেচনাহীন বুলি ও ফেসবুকের ছবি শেয়ার সম্বলিত অন্ধ ঈমানের কারণে তোমার আল্লাহ অকর্মণ্য নির্বোধকে কখনই উঠাইয়া বা বাঁচাইয়া দিবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *